Thursday, 14 Sep, 11.20 am

হোম
প্রথম বুলেট ট্রেন প্রকল্পের সূচনা মোদি-আবের

আজকাল ওয়েবডেস্ক: অবশেষে অপেক্ষার অবসান। গুজরাটের সবরমতীর অ্যাথলেটিক স্টেডিয়ামে ঐতিহাসিক বুলেট ট্রেন প্রকল্পের সূচনা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। জাপানের আর্থিক সহায়তায় ১ লক্ষ ১০ হাজার কোটি টাকা ব্যায়ে আহমেদাবাদ থেকে মুম্বই তৈরি হবে বুলেট ট্রেনের ট্র্যাক। এর মধ্যে ৮৮ হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে জাপান। এই কাজে ভারতকে শুধু আর্থিক সহযোগিতা নয় প্রযুক্তি গত সহযোগিতাও করছে জাপান। প্রায় ১০০ জাপানি ইঞ্জিনিয়ার এই কাজে সহায়তা করবে। বৃহস্পতিবার সকালে সবরমতীতে বুলেট ট্রেনের শিলান্যাস করে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে বলেন, ভারতকে প্রগতির পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে পেরে জাপান নিজেকে ধন্য মনে করছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে দুই দেশের সম্পর্কে আরও মজবুত হবে।
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও এই কাজে ভারতকে সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেন,
জাপানের সহায়তায় স্বপ্ন পূরণের পথে একধাপ এগোল ভারত। এই প্রকল্পের বাস্তবায়ন হলে বুলেটের গতিতেই হবে দেশের প্রগতি। কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়বে। দেশের আর্থিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে বদল আসবে। বিদেশি লগ্নি বাড়বে। নতুন ভারত তৈরির পথে আরও একধাপ এগিয়ে যাবে ভারত। জাপান যে আর্থিক সহযোগিতা করছে সেটি টাকা ৫০ বছরে মাত্র ০.১ শতাংশ সুদে ফেরত দিতে হবে ভারতকে। যেটা এক কথায় বলা যায় নগন্য। এর জন্য জাপানের প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
বিমানের থেকেও কম সময়ে পৌঁছে যাওয়া যাবে আহমেদাবাদ থেকে মুম্বই। ৫০৮ কিলোমিটার পথ মাত্র ৩ ঘণ্টার মধ্যেই শেষ করা যাবে। মুম্বই থেকে আহমেদাবাদের মধ্যে থাকবে ১২টি স্টেশন। বান্দ্রা কুরলা কমপ্লেক্স, থানে, বিহার, বৈসার, ভাপি, বিলমোরা, সুরাট,বারুচ,ভদোদরা,আনন্দ,আহমেদা ও সবরমতী। ঘণ্টায় ৩২০ থেকে ৩৫০ কিলোমিটার বেগে ছুটবে বুলেট ট্রেন। সমুদ্রের নীচ দিয়ে যাবে ৭ কিলোমিটার পথ। থাকবে এলিভেটেড ট্র্যাক। প্রথম দিকে ১০টি কামরা থাকবে। প্রতিদিন ৩৬ হাজার যাত্রীর যাতায়াতের সুযোগ থাকবে। ভাড়া হবে ২৭০০ থেকে ৩০০০ টাকা। ২০২২-২৩ সালের মধ্যে শেষ করা হবে কাজ।

কী ভাবে, কোথা দিয়ে ছুটবে বুলেট ট্রেন, দেখছেন আবে, মোদি। আমেদাবাদে। ছবি: পিটিআই

Dailyhunt
Top