Saturday, 05 Jan, 12.17 pm Mahanagar24x7 Bengali

প্রচ্ছদ
তাতার গোয়েন্দার প্রথম পছন্দ ফেলু মিত্তির

নবনীতা দত্তগুপ্ত: অধিরাজ গাঙ্গুলি। সেন্ট থমাস স্কুলের দশম শ্রেণীর ছাত্র সে। সামনেই প্রথম বোর্ডের পরীক্ষা তার। এরই মাঝে মুক্তি পেল 'গোয়েন্দা তাতার'। হ্যাঁ, এত কথা বলার কারণ একটাই, এই ছবিতে তাতারের ভূমিকায় অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে তাকেই। সাড়ম্বরে মুক্তি পেল সেই ছবি। প্রিমিয়ারে সঠিক সময়ে হাজির গোয়েন্দা তাতার। বলা ভাল, সবার আগে এসে হাজির সে-ই। কারণ বড় দায়িত্ব যে তার কাঁধেই। তাই দেরি না করে দ্রুত সেই ছোটে ওস্তাদকে পাকড়াও করা হল একটু গল্প জমানোর উদ্দেশ্য চরিতার্থ করতে।

অধিরাজ ইন্ডাস্ট্রির নতুন মুখ নয়। এর আগে ছায়াময়, কাদম্বরী (ছোট রবির চরিত্রে), কানামাছি ভোঁ ভোঁ, ধারাস্নান সহ বহু ছবিতে অভিনয় করেছে সে। মহানায়ক ধারাবাহিকে মহানায়কের ছেলের ভূমিকায় অভিনয় করেছে অধিরাজ। অভিনয় নিয়ে আগামী দিনেও পথ চলতে চায় বছর পনেরোর অধিরাজ। অভিনয় ছাড়াও নাচ শেখে সে। তার নৃত্য শিক্ষাগুরু মন্দিরা বসু। তাঁর কাছেই হিপহপ এবং কন্টেম্পোরারি নাচের তালিম নেয় অধিরাজ। পাশাপাশি ফোটোগ্রাফির উপরেও দারুণ ঝোঁক আছে অধিরাজের। তাই সেটাকেও ফেলে দিতে চায় না সে। পড়াশুনা, নাচ, অভিনয়ের পাশাপাশি সময় পেলেই ক্যামেরায় 'ঘিচিক' করার অভ্যাস আছে ছেলেটার। মোবাইল নিয়ে সারাক্ষণ খুট খুট করার অভ্যাস নেই বলে নিজেই জানিয়েছে অধিরাজ বাবু।

এহেন গোয়েন্দা তাতার থুড়ি অধিরাজের প্রিয় গোয়েন্দা ফেলু মিত্তির মানে ফেলুদা। ফেলুদার পারসোনালিটি অধিরাজের বিশেষ পছন্দের। পাশাপাশি ফেলুদার চরিত্রে সব্যসাচী চক্রবর্তী তার কাছে সেরা। অধিরাজ বলে- 'প্রদোষ মিত্রকে তো কেউ আমরা দেখিনি, ফেলুদার গল্প পড়তে গেলে বারবার আমার সব্যসাচী চক্রবর্তীর মুখটাই চোখে ভেসে ওঠে। আমার ছায়াময় ছবিতে ওনার সঙ্গে কাজ করেছি। ওটাই আমার প্রথম ছবি। আমি ধন্য মনে করি নিজেকে। আমার প্রিয় অভিনেতাও সব্যসাচী চক্রবর্তী।'
জানতে চেয়েছিলাম, এখন তো আর সব্যসাচী চক্রবর্তী ফেলুদা করছেন না, তাও কখনও সুযোগ পেলে তোপসের চরিত্রে অভিনয় করতে পারলে করবে কিনা?
অধিরাজ রাজি। আসলে অভিনয়টা করতে চায় সে। টলি, বলি এবং হলি তিন জায়গাতেই কাজ করার অদম্য ইচ্ছা রয়েছে তার।

নৃত্যশিল্পী অধিরাজ

অনেকদিন ধরেই কাজ করছে এই ফিল্ডে, তবে পরিচালক হিসেবে বিশেষ পছন্দের কেউ আছেন কিনা জানতে চাইলে অধিরাজের বুদ্ধিদীপ্ত উত্তর- 'আমার কাছে সবাই সমান। আমারই এখনও অনেককিছু শেখার বাকি আছে। একটা ছবি টানা দু-ঘণ্টা টেনে নিয়ে যাওয়া সহজ কথা নয়। আর সেটা সম্ভব হয় একজন পরিচালকের জন্যই। তার জন্য আমি সব পরিচালককেই স্যালুট দেব। সবাই আসলে হিরো। আমি যে কোনও পরিচালকের সঙ্গে কাজ করতে রাজি আছি।'
শেষ প্রশ্নে জানতে চাই, 'গোয়েন্দা তাতার' ঠিক কোথায় আলাদা? অধিরাজ জানায়- 'অন্যান্য গোয়েন্দারা নির্দিষ্ট কিছু জিনিস খোঁজেন। আর তাতার বন্ধুকেও খোঁজে আবার সোনার মূর্তিও খোঁজে। তাতার বন্ধুত্বের দাম দেয়। বাকিটা জানতে হলে ছবিটা দেখতেই হবে।'
— এরপরে অধিরাজের ডাক আসে পরিচালকের তরফে। এবার শো শুরু হবে। সবাইকে আসন গ্রহণ করতে বলেন পরিচালক শ্রীকান্ত গোলুই।

Dailyhunt
Disclaimer: This story is auto-aggregated by a computer program and has not been created or edited by Dailyhunt. Publisher: Mahanagar bengali
Top