Friday, 18 Oct, 6.17 pm মঙ্গলকোট.কম

হোম
দুর্গা-বরণ - জয়া গুহ (তিস্তা)

দুর্গা-বরণ

জয়া গুহ (তিস্তা)

এবারের মা দুর্গার বরণ আমায় টেনে নিয়ে গিয়েছিল পুরোনো পাড়ায়।
আমার জন্ম,বেড়ে ওঠা,কৈশোরের ধারাপাত,যৌবনে পা দেওয়া, প্রেমে পড়া,ফিসফিস সমালোচনার মোড়কে কখনো মা-কাকীমাদের বিকেলের আড্ডায় উঠে আসা থেকে ছাদনাতলা অবধি- প্রায় পুরোটাই কেটেছে এপাড়ায়।যে দিদিরা বৌ-বাসন্তী খেলায় দুধে-ভাতে নিত আমায়, তারা এখন জ্যেঠিমা কাটিং,যে বোন গুলো হাত ধরাধরি করে মেরি গো রাউন্ড খেলতো তারা যুবতী।
'কি সুন্দর দেখতে হয়েছিস রে' বললে লজ্জায় লাল।
শাড়ির আঁচল খোঁটা সেদিনের আমিও গেরস্ত বাড়ির বউ।
আজ সক্কলকে দেখছি দু-গাল লাল সিঁদুরে ঢাকা।
সবথেকে আশ্চর্যের লাগলো সুমিতা বৌদিকে। বছর পাঁচেক আগে দাদা মারা গিয়েছেন।বৌদিও পুরোনো সংস্কার ভেঙে এই আনন্দের আয়োজনে মেতেছেন।
সিঁথি টুকু ফাঁকা রেখে গাল ভর্তি সিঁদুর মাখতে আপত্তি করেননি।বুকে টেনে নিয়েছে গোটা পাড়া।
বুঝলাম বিকেলের মহিলামহল আর তত এক্টিভ নেই,
বয়সের ভারেই বোধহয় এমনটা।
রূম্পা দি কে দেখলাম প্রথম সিঁদুর পরা।
প্রায় চৌদ্দ বছর আগে, রুম্পাদিদের বাড়িতে সানাই বেজেছিল।সন্ধ্যে বেলা সাজানো গাড়ি চেপে বর এল।
দেখতে গিয়েছিলাম শুধুমাত্র আমন্ত্রিত বলে নয়,মেয়েলি কৌতূহলে।
রূম্পাদির পাশে দারুণ লাগছিল ভদ্রলোককে।
শুনেছিলাম রুম্পাদির অফিসেরই এক উঁচু পোষ্টের সহকর্মী।
রুম্পাদি শ্বশুরবাড়ি যায় নি,রুম্পাদির বৌভাত ও হয়নি।
সারা পাড়া জেনেছিল এই নামমাত্র বিয়ের কারণ বছর না ঘুরতে পারা রুম্পাদির কোল আলো করে আসা ছেলের পিতৃপরিচয় টুকুই।
অনেকটা সময় রুম্পাদিকে একলা পেলাম এই প্রথম।
'আর বিয়ে করলে না কেন?' জানতে চাইলাম

'আর ভালোবাসতে পারলাম না যে কাউকে,তুই ভালোবেসেছিস কখনো?
বাসলে বুঝতিস, তা ইচ্ছাধীন নয়,হাজার চেষ্টা করেও তার মুখ বদল হয় না রে,কে থাকলো, কে থাকলো না তাতে কিচ্ছু যায় আসে না, কিচ্ছু না।সম্পর্ক বাঁচে না আমরা বাঁচিয়ে রাখি তাকে,আগলাই চারা গাছের মত,সার দিই, জল দিই, ঘিরে রাখবার বেড়া দিই।ডালপালা মেলতে দিই ইচ্ছেমতো।হয়ত তার সাথে নিজেরাও বেঁচে থাকার রসদ পাই।
আচ্ছা যেমন ধর মা যশোদা, নিজের মা নয়, একদিন ছেড়ে যাওয়া নিশ্চিত জেনেও সবটুকু দিয়েই আগলেছেন কৃষ্ণ কে।আর রাধা?কৃষ্ণ ফেরা/না ফেরায় কি এসে গিয়েছিল তার?
গল্প কথা, রূপকথা সবটুকু যদি ধরেই নিই,তাহলেও ভাব তোদের রুম্পাদিও এই রূপকথার চরিত্র হওয়ার লোভ সামলাতে পারে নি।
কিচ্ছু হারায় নি আমার, বয়ে বেড়ানো বুক চিনচিনে অনুভূতি ভাগ্যবান/ভাগ্যবতীদের কপালেই জোটে রে,ছেলে মানুষ এসব বুঝবি না তুই'

লাল টকটকে জামদানী, দু গালে, সিঁথিতে টকটকে সিঁদুর নিয়ে শ্যামলা রুম্পাদিকে কেন জানি না মা দুর্গার মত মোহময়ী লাগছিল।
এমন দুর্গাবরণ,এমন সিঁদুর খেলা আর কখনো ঘটেনি জীবনে,কখনো না.।

Dailyhunt
Disclaimer: This story is auto-aggregated by a computer program and has not been created or edited by Dailyhunt. Publisher: Mongalkote.com
Top