Friday, 27 Sep, 4.45 am নতুন

হোম
রোজভ্যালি চিটফান্ড কান্ডে সিবিআই তদন্তের গতি বাড়ানোর অনুরোধ জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

নতুন প্রতিনিধি, আগরতলা, ২৬ সেপ্টেম্বর ।। চিটফান্ড কান্ড এবং ত্রিপুরার দুই সাংবাদিকের হত্যাকান্ডে সিবিআই তদন্তের গতি বাড়ানোর জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের কাছে অনুরোধ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। আজ তিনি নয়াদিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে দেখা করেছেন।এক ট্যুইট বার্তায় ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে রোজভ্যালি চিটফান্ড কান্ডে সিবিআই তদন্তের গতি বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছি। পাশাপাশি ত্রিপুরায় দুই সাংবাদিক হত্যা মামলায় সিবিআই তদন্তের গতি বাড়ানোর জন্যও অনুরোধ জানিয়েছি। তাঁর কথায়, উভয় মামলায় দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক তা চেয়েছি।ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, রোজভ্যালি চিটফান্ড কান্ডে সিবিআই তদন্তে ত্রিপুরার গরিব আমানতকারীরা ন্যায় পাবেন বলে বিশ্বাস করি। তাঁর দাবি, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ সমস্ত বিষয় মনোযোগ দিয়ে শুনেছেন। তাঁর অনুরোধের ভিত্তিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের শীর্ষ আধিকারিকদের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অবিলম্বে ওই মামলাগুলির দ্রুত সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেছেন, চিটফান্ড কান্ড ও সাংবাদিক হত্যা মামলায় শীঘ্রই সিবিআই আধিকারিকরা ত্রিপুরায় আসবেন।
মুখ্যমন্ত্রী আরও জানান, সীমান্তে কাঁটাতার এবং সাব্রুমে প্রস্তাবিত আইপিসি নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। ত্রিপুরার উন্মুক্ত সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া বসানোর কাজ সমাপ্ত করার জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে দাবি জানানো হয়েছে। এছাড়াও ত্রিপুরা সরকারের বিভিন্ন জনমুখী কাজকর্ম নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে আলোচনা হয়েছে।এদিকে, রাজ্যের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব গতকাল এবং আজ নয়াদিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ, কেন্দ্রীয় জলসম্পদ মন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াত, কেন্দ্রীয় সামাজিক ন্যায় ও ক্ষমতায়ন মন্ত্রকের মন্ত্রী থাওয়ার চান্দ গেহলট এবং উত্তর-পূর্বালঞ্চল উন্নয়ন মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী জিতেন্দ্র সিং-এর সঙ্গে সাক্ষাত্‍ করে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন। রাজ্যের যে সমস্ত প্রস্তাব এবং গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পসমূহ বাকি রয়েছে সে সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ-এর সঙ্গে আলোচনাকালে মুখ্যমন্ত্রী সন্ত্রাসবাদীদের অনুপ্রবেশ বন্ধ করতে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দেওয়ার যে অসমাপ্ত কাজ রয়েছে তা সম্পর্ণ করার অনুরোধ জানান। এছাড়াও ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে বাণিজ্যের উন্নতিকল্পে সাবমে ইন্টিগ্রেটেড চেকপোস্টের দ্রত অনুমোদনের উল্লেখ করেন। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনাকালে মুখ্যমন্ত্রী রোজভ্যালি চিটফাণ্ড এবং দুই সাংবাদিক হত্যাকাণ্ডে সি বি আই তদন্ত দ্রত শেষ করার জন্য অনুরোধ জানান। দুই সাংবাদিকের পরিবার যাতে দ্রত ন্যায় পায় মুখ্যমন্ত্রী তারজন্য অনুরোধ করেন। দুটি টি এস আর ব্যাটেলিয়নে যাতে আরও লোক নিয়োগ করা যায় সেজন্য মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের বেকার যুবকদের স্বার্থে দুটি টি এস আর ব্যাটেলিয়ন রাজ্যের বাইরে নিযুক্ত করার দাবি জানান। রাজ্যের জনজাতিদের বিভিন্ন ইস্য এবং আর্থ-সামাজিক উন্নতির বিষয় খতিয়ে দেখতে উচ্চপর্যায়ের কমিটির কাজ ত্বরান্বিত করতে তিনি দাবি জানান। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজ্যের এই সমস্ত বিষয়গুলির দ্রত সমাধান করার জন্য প্রয়োজনীয় ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে বিবেচনা করবেন বলে আশ্বাস দেন। মুখ্যমন্ত্রী শ্রীদেব উত্তর-পূর্বাঞ্চল উন্নয়ন মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী জিতেন্দ্র সিং-এর সঙ্গে আলোচনাকালে ডোনার মন্ত্রকের যে সমস্ত এন এল সি পি আর প্রকল্প বকেয়া রয়েছে তার অনুমোদন দেওয়ার অনুরোধ করেন। একই সঙ্গে সমস্ত কেন্দ্রীয় মন্ত্রক যাতে তাদের বাজেট বরাদ্দের ১০ শতাংশ অর্থ উত্তর-পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলির জন্য ব্যয় করে তা সুুনিশ্চিত করতেও মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়েছেন। এছাড়া যে সমস্ত রাজ্য বিভিন্ন প্রকল্প দক্ষতার সঙ্গে সম্পন্ন করে তাদের আরও অর্থ অনুমোদন দেওয়ার জন্য মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়েছেন। কেন্দ্রীয় জলশক্তি মন্ত্রকের মন্ত্রী গজেন্দ্র সিং শেখাওয়াতের সঙ্গে রাজ্যের বকেয়া প্রস্তাবগুলি সম্পর্কে আলোচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী শ্রী শেখাওয়াত জলসেচ প্রকল্পের জন্য ১৯ কোটি টাকা মঞ্জুর করতে সম্মত হয়েছেন। এছাড়াও ৯৭.১৭২২ কোটি টাকা ব্যয়ে জলসেচের জন্য ৩০০টি গভীর নলকূপ খননের সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন। এগুলির মাধ্যমে ৪১০০ হেক্টর এলাকায় জলসেচ করা যাবে। ১৫.৪৫৮৭ কোটি টাকা ব্যয় করে ২৩১টি শ্যালো টিউবওয়েল খননের অনুমোদনও দেওয়া হবে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এছাড়াও রুদ্রসাগর লেইকের সংস্কার, খনন এবং পুনরুদ্ধারের জন্য ১৬০.৪২৩ কোটি টাকা মঞ্জুর করতে সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন। এর ফলে ৪৪৮ হেক্টর এলাকায় সেচের ব্যবস্থা করা যাবে এবং এই স্থানটি পর্যটকদের কাছে আরও আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে। চম্পকনগরে একটি ডেম গড়ে তোলার জন্য প্রস্তাব পেশ করতে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুখ্যমন্ত্রীকে বলেছেন। উল্লেখ্য, এই ডেমটি গড়ে উঠলে আগরতলায় পানীয় জলের প্রয়োজনীয়তা অনেকটাই দূর হবে এবং বন্যা নিয়ন্ত্রণেও সহায়ক হবে। মুখ্যমন্ত্রী এছাড়াও আজ সামাজিক ন্যায় ও ক্ষমতায়ন দপ্তরের মন্ত্রী থাওয়ার চান্দ গেহলটের সঙ্গে সাক্ষাত্‍ করেন। সেই সময় দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী রতনলাল কাটারিয়া, সামাজিক ন্যায় ও দিব্যাঙ্গজন মন্ত্রকের সচিবও উপস্থিত ছিলেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ত্রিপুরায় এস সি, এস টি ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য হোস্টেল নির্মাণের বিষয়ে সম্মতি জ্ঞাপন করেন এবং এে'সেবল ইণ্ডিয়া প্রচার অভিযানের অঙ্গ হিসেবে ৭.৪৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ৬টি দালান বাড়ির রেট্রোফিটিং-র কাজের অনুমোদন দিয়েছেন।

Dailyhunt
Disclaimer: This story is auto-aggregated by a computer program and has not been created or edited by Dailyhunt. Publisher: Natun
Top