Saturday, 06 Mar, 8.16 pm প্রথম কলকাতা

হোম
প্রথম কলকাতা দশ লক্ষের মাইল স্টোন পেরিয়ে বড় পরিবারের পরিণত হয়েছে , শুভেচ্ছা বার্তায় কী জানালেন বিশিষ্ট রাজনৈতিক বিশ্লেষক বিশ্বনাথ চক্রবর্তী?

।। মধুমিতা দাঁ ।।

প্রথম কলকাতা এখন ইউটিউবে ৫ লক্ষ পরিবারের সদস্য। এছাড়াও ফেসবুক ওয়েব এবং ডেলিহান্টের সাথে সংযোজন হওয়ার পর থেকে ১০ লক্ষ সদস্যের পরিবার এখন প্রথম কলকাতা। শুভেচ্ছাবার্তা জানালেন বিশিষ্ট রাজনৈতিক বিশ্লেষক বিশ্বনাথ চক্রবর্তী। তিনি জানান, "পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে তোমরাই প্রথম যারা দর্শকদের কাছে পৌঁছতে পেরেছো। এটা একটা বিরাট মাইলস্টোন। আর তোমাদের কে আলাদা করে গুরুত্ব দিব দুটো কারণে, যখন মেইন মিডিয়া কার্যত বিজ্ঞাপনের জন্য কোনো না কোনো রাজনৈতিক দল বা শাসক দলের কাছে মাথা নত করে খবর পরিবেশন করে, তখন তোমরা কিন্তু প্রতিষ্ঠানবিরোধী খবরগুলো করতে পারো।

প্রথম কলকাতাকে আমি অসংখ্য ধন্যবাদ জানাব এই কারণে, যে লকডাউন যখন শুরু হল তখন বিজ্ঞাপন দিয়ে রাজ্য সরকার কার্যত সমস্ত সংবাদমাধ্যমকে নিজের পক্ষে নিয়ে গিয়েছিল, প্রথম কলকাতায় একটা সোশ্যাল মিডিয়ার পার্ট হিসেবে তোমরা সেই সময় মানুষের দুঃখ-দুর্দশা যেভাবে তুলে ধরেছ লকডাউনের সময়, সেটা কিন্তু ভুলবার নয়। তোমরা হাসপাতালের অবস্থা, রেশন নিয়ে যে দুর্নীতি, আমফানের সময় যে দুর্নীতি, এই পর্যায়টার জন্য আমি প্রথম কলকাতাকে মাথায় রাখবো। রাজনৈতিক এডিটোরিয়াল পলিসি কারোর থাকতেই পারে, এর মধ্যে কোন অন্যায় নেই কিন্তু মানুষের সুখ দুঃখ গুলো যদি মিডিয়া পরিবেশন না করে বা বিজ্ঞাপন হারিয়ে যাবে সেই ভয়ে, যেটা মেন মিডিয়া করে তাতে সংবাদ মাধ্যম থাকা না থাকা একই।

আরো পড়ুন : প্রথম কলকাতা এখন ইউটিউব, ওয়েব, ফেসবুক ও অ্যাপ মিলিয়ে ১০ লক্ষ সদস্যের পরিবার , কী বলছেন তারকারা?

সেই জায়গায় সোশ্যাল মিডিয়ার ভূমিকা, বিশেষ করে লকডাউন পিরিয়ডে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিল। যদি না নিত তাহলে পশ্চিমবঙ্গ মানুষের দুঃখ-দুর্দশা অনেকগুণ বেড়ে যেত, তোমরা আলাদা করে আমার কাছে হার্দিক অভিনন্দন পাবে এই কারণে যে মানুষের সুখ দুঃখ গুলো বারবার তুলে ধরেছো।" এর পাশাপাশি তিনি আগামী দিনে আরো কি কি করা যেতে পারে সেই বিষয়ে মতামত দেন। তিনি বলেন, "মানুষের কথাগুলো বলতে হবে, মানুষের সুখ দুঃখের কথা গুলো বলতে হবে, সরকারের অন্যায় গুলো বলতে হবে, পাওয়ার কে প্রশ্ন করতে হবে সেই পাওয়ার যত বড়ই ক্ষমতায় থাকুক না কেন রাষ্ট্রশক্তিকে নিয়ে প্রশ্ন করতে হবে, নাগরিক সমাজের ভয়েস গুলো তুলে ধরতে হবে, যেটা তোমরা যথেষ্ট পরিমাণে করো।

আমি মনে করি আগামী দিন সোশ্যাল মিডিয়ার যুগ কারণ আর মেইনস মিডিয়ার পক্ষে মাথা তুলে দাঁড়ানোর আর সম্ভব নয়। তারা বিজ্ঞাপনের দাসে পরিণত হয়েছে। রাজ্য সরকার এবং কেন্দ্র সরকার যেভাবে চালায় সেভাবেই এরা চলে। ফলে মেন মিডিয়ার কোন ভবিষ্যত্‍ আছে বলে আমি মনে করিনা। আগামী দিন তোমাদের আরও দায়িত্বশীল হতে হবে। এখন যেমন দশ লাখ শ্রোতা-দর্শকের কাছে তোমরা পৌঁছুলে তাতে আরও দায়িত্বশীলতা বাড়লো, কোন ফেক নিউজটা তে প্রচারিত না হয়। আমফানের সময় বা করোনার সময় এবং হাসপাতালের অব্যবস্থা নিয়ে তোমরা তখন কথা বলেছ, অব্যবস্থা গুলোকে তুলে ধরেছো। এই ভূমিকাটাই মানুষ দেখতে চায়। এই ভূমিকাতেই আমি আগামী দিনে প্রথম কলকাতাকে দেখতে চাই আমার অনেক অনেক শুভেচ্ছা অনেক অনেক ভালোবাসা প্রথম কলকাতার প্রতি রইল।

আগামীতে তোমরা ১০ লক্ষের গণ্ডি পেরিয়ে আরো আরো অনেক দূর এগিয়ে যাও এই বিশ্বাস রাখি, শুভেচ্ছা থাকলো প্রথম কলকাতাকে এবং তার সাথে যুক্ত সমস্ত কর্মী প্রতি ভালোবাসা রইলো"। এর পাশাপাশি সংবাদ প্রতিদিনের ব্যুরো প্রধান চন্দন দা প্রথম কলকাতার সফলতার অভূত প্রশংসা করেন। তিনি বলেন "এই সফলতা আমার কাছে গর্বের বিষয়"। নির্বাচন প্রসঙ্গে প্রথম কলকাতার কাছে তিনি সঠিক খবর করা, মানুষের কথা তুলে ধরার আর্জি রাখলেন প্রথম কলকাতার কাছে। ধন্যবাদ আপনাদেরকেও মূল্যবান মতামতের জন্য। এই ভাবেই পাশে থাকার আর্জি রইল প্রথম কলকাতার তরফ থেকে সকলকে।

Tags: Bishwanath Chakraborty prothom kolkata west bengal

Continue Reading

Previous ভিডিও অ্যালবাম- শর্টফিল্মে হাইটেক প্রচারে বিজেপি, নয়া স্টাইলে মাতবে ব্রিগেড

Dailyhunt
Disclaimer: This story is auto-aggregated by a computer program and has not been created or edited by Dailyhunt. Publisher: Prothom Kolkata
Top